স্টুডেন্ট অনলাইন ইনকাম করার উপায়

স্টুডেন্ট অনলাইন ইনকাম পোস্টটিতে আপনাকে স্বাগতম। আজকের এই লেখাটি পড়ে আপনিও পড়াশুনার পাশাপাশি অনলাইনে টাকা ইনকাম করতে সক্ষম হবেন। Student Online Income আমাদের দেওয়া প্রতিটা বিষয় পরীক্ষিত ও অনেকেই এই মাধ্যমে অনলাইনে ছাত্র অবস্থায় টাকা ইনকাম করছে।

যদি পড়াশোনার পাশাপাশি আপনি যদি অনলাইন ইনকাম শুরু করতে চান? তাহলে 2023 সালে স্টুডেন্ট অনলাইন ইনকাম করার কয়েকটি কার্যকরী পদ্ধতি দেখে নিন। এই পদ্ধতি গুলো অবলম্বন করে স্টুডেন্টরা তাদের প্রয়োজনীয় সকল চাহিদা মেটাতে পারবে।

স্টুডেন্ট অনলাইনে ইনকাম

বর্তমান সময়ে পড়াশোনার পাশাপাশি বেকারানা থেকে অনলাইনে খুব সহজেই টাকা ইনকাম করতে পারবেন। ছাত্র অবস্থায় সময়কে কাজে লাগিয়ে বাড়তি টাকা আয় করার জন্য সবচেয়ে সহজ পদ্ধতি গুলো আপনাদের সাথে আজকে শেয়ার করব। অবসর সময় না কাটিয়ে ও বিনা কারণে ফেসবুকে সময় না দিয়ে আপনি যদি এই পদ্ধতি গুলো ফলো করেন তাহলে আপনি অনলাইনে টাকা ইনকাম করতে সক্ষম হবেন।

আমি নিজেও এই পদ্ধতিতে টাকা ইনকাম করছি। তবে, এর জন্য আপনাকে প্রথম দিকে একটু কষ্ট করতে হবে এবং পরবর্তীতে এই কষ্টের ফলাফল হিসেবে ভালো একটি প্যাসিভ ইনকাম জেনারেট করতে পারবেন। তাহলে চলুন দেখে নেই সেই পদ্ধতি গুলো যেগুলো আপনি অবলম্বন করে ছাত্র অবস্থায় স্টুডেন্ট হিসেবে পার্ট টাইম জব করে খুব সহজেই টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

আর্টিকেল লিখে অনলাইন ইনকাম

বর্তমান সময়ে সবচেয়ে টাকা ইনকামের সহজ পদ্ধতি হলো অনলাইনে আর্টিকেল প্রকাশ করা। ছাত্র অবস্থায় আপনি বিভিন্ন প্রকার আর্টিকেল লিখতে পারেন যেমন পড়াশোনা নিয়ে, বিভিন্ন ব্লগ নিয়ে, আপনার পছন্দের যেকোন বিষয় হতে পারে সেটি টেকনোলজি ও কবিতা ও গল্প।

আপনার প্রতিভাকে কাজে লাগিয়ে ইউনিট আর্টিকেল লেখার মাধ্যমে যে কনটেন্ট জেনারেট করবেন এই কন্টেন্ট বিভিন্ন ওয়েবসাইটে প্রকাশ করে অনলাইন থেকে খুব সহজে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। আর্টিকেল লেখার জন্য আপনাকে অবশ্যই লেখার প্রতি ভালো ধারণা থাকতে হবে যেমন আপনি যে বিষয়ে লিখতে চান সেই বিষয়ে আপনার জ্ঞান থাকলে আর্টিকেল লিখতে অনেক সুবিধা হবে।

আপনি বিভিন্ন ওয়েবসাইটে যেমন Trickbd.com অথবা আমাদের এই inforesultbd.com ওয়েবসাইটে আর্টিকেল প্রকাশ করতে পারেন। প্রতি আর্টিকেলের জন্য আপনাকে নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা প্রদান করা হবে এবং এই টাকাটি আপনাকে প্রতিমাসে বিকাশ ও অন্যান্য পদ্ধতিতে পেমেন্ট করা হবে। বর্তমান সময়ে বিভিন্ন ওয়েবসাইট রয়েছে যেগুলো কন্টেন্ট রাইটার অর্থাৎ আর্টিকেল লেখক কে নিয়োগ দিয়ে থাকে এরকম ওয়েবসাইট গুগলে সার্চ দিলে অনেক পেয়ে যাবেন।

ব্লগিং করে অনলাইন ইনকাম

স্টুডেন্টদের অনলাইনে ইনকাম করার জন্য সবচেয়ে সেরা পদ্ধতি হলো ব্লগিং করা। আপনি যদি স্টুডেন্ট হয়ে থাকেন এবং প্যাসিভ ইনকামের জন্য সেরা একটি মাধ্যম খুঁজে থাকেন তাহলে ব্লগিং আপনার জন্য সেরা হবে। বর্তমানে স্টুডেন্টরা সবচেয়ে বেশি এই পেশাকে বেছে নিয়েছে। প্রাথমিক দিকে কিছু ওয়েবসাইট সম্পর্কে জ্ঞান নিয়ে ও ইউটিউব দেখে ওয়েবসাইট তৈরি করে সেখানে প্রতিনিয়ত কনটেন্ট দেয়ার মাধ্যমে ব্লগিং করে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

এছাড়া বর্তমান সময়ে ব্লগিং করে টাকা আয় করা সবচেয়ে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। এই পদ্ধতিতে স্টুডেন্টরা খুব কম সময়ে ভালো টাকা ইনকাম করতে পারবে। তবে, এর জন্য আপনাকে কিছু সময় ধৈর্য ধরতে হবে, প্রাথমিক দিকে প্রকাশের পর আপনাকে বিজ্ঞাপন দেওয়ার জন্য কোম্পানির সাথে চুক্তি করতে হবে। আপনার কন্টেন্টের মাঝে বিজ্ঞাপন দেখিয়ে ব্লগিংয়ের মাধ্যমে প্রচুর টাকা আয় করতে পারবেন। সেক্ষেত্রে আপনি গুগল এডসেন্স ব্যবহার করতে পারেন, বর্তমান সময়ে ব্লগিং এর সাথে গুগল এডসেন্স যুক্ত করে সহজেই প্যাসিভ ইনকাম হিসেবে টাকা আয় করা যায়।

ব্লগিং করার জন্য প্রাথমিক দিকে আপনাকে একটি ডোমেন ও হোস্টিং কিনতে হবে। এক্ষেত্রে আপনি প্রাথমিক দিকে টাকা বাঁচানোর জন্য গুগল ব্লগার হোস্টিং ব্যবহার করতে পারেন। বিনামূল্যে আপনাকে হোস্টিং দেওয়া হবে গুগলের পক্ষ থেকে।

ইউটিউবিং করে অনলাইনে ইনকাম

বর্তমানে ইউটিউবিং পেশাটি অনেক জনপ্রিয় হয়েছে কারণ কম বেশি সবাই ইউটিউবে ভিডিও দেখতে পছন্দ করে। ইউটিউবে একটি খুব জনপ্রিয় ও সফল অনলাইন ব্যবসার মাধ্যম। একজন স্টুডেন্ট হিসেবে আপনি ইউটিউবিং করে অনলাইনে ইনকাম করতে পারেন। ইউটিউব চ্যানেলের জন্য আপনি যেকোনো ধরনের ভিডিও তৈরি করতে পারেন, যা আপনার পছন্দ।

ভিডিও যে কোন বিষয়ের উপরে হতে পারে এটি অন্যকে শেখানো বা কিছু হাসির মজার ভিডিও,খেলার উপর ভিত্তি করে ভিডিও অথবা টেক নিউজ নিয়ে ভিডিও তৈরি করতে পারেন। এরপর, আপনার ইউটিউব চ্যানেলের জন্য একটি ভাল নাম দিন ও আপনার তৈরি করা ভিডিও আপলোড করুন, এবং ট্যাগ সহ বিভিন্ন ধরনের টাইটেল বিস্তারিত ক্যাপশন ও ডেসক্রিপশন বক্স লিখুন।

এরপর, আপনি আপনার ভিডিও প্রচার করতে শুরু করুন। আপনি আপনার ভিডিও সামাজিক মাধ্যমে শেয়ার করতে পারেন, আপনার ব্লগে একটি লিঙ্ক সংযোজন করতে পারেন, এবং আরো অন্যান্য উপায়ে আপনার ভিডিও প্রচার করা যায়। আপনার ভিডিওতে ভিউজ আসলে আপনাকে ইউটিউবের পক্ষ থেকে কিছু টাকা প্রদান করা হবে বিজ্ঞাপন দেখানোর মাধ্যমে। তবে বর্তমান সময়ে ইউটিউবে বিজ্ঞাপন দেখাতে হলে এডসেন্সের পারমিশন নিতে হয়।

বর্তমান সময়ে ইউটিউবে এডসেন্স পেতে হলে ৪০০০ ঘন্টা ওয়াচ টাইম ভিডিও প্লে হতে হবে। এবং সেই সাথে চ্যানেলটিতে ১০০০ সাবস্ক্রাইবার (subscriber) থাকতে হবে। প্রতিনিয়ত আপনার ভিডিওতে কতজন ভিউ করছে বা কতজন চ্যানেলটি ভিজিট করেছে এই তথ্য নেওয়ার জন্য ট্রাকিং কোড ব্যবহার করতে পারেন।

আপনাকে ইউটিউব থেকে ডিউস এর পরিবর্তে যে টাকাটি প্রদান করবে সেই টাকা বিভিন্ন মাধ্যমে উত্তোলন করতে পারবেন হতে পারে সেটা ব্যাংক বা অন্য কোন অনলাইন পেমেন্ট এর মাধ্যমে। আপনি ইউটিউবে ভিডিও এডিটিং স্ক্রিপ্ট লেখা ও মার্কেটিং সম্পর্কে বিস্তারিত ভিডিও তৈরি করতে পারেন এইসব ভিডিও বর্তমান সময়ে সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয়।

অনলাইনে শিক্ষাদান করে অনলাইন ইনকাম

আপনার যদি অনেক মেধা থাকে অর্থাৎ আপনি পড়াশুনার সব বিষয়ে অনেক পারদর্শী তাহলে অনলাইনে শিক্ষা দান করে টাকা ইনকাম করা আপনার জন্য সবচেয়ে সহজ ও সুন্দর পদ্ধতি হতে পারে। বর্তমান সময়ে অনলাইনে এখন সব পড়াশোনার কার্যক্রম শুরু হয়েছে বিশেষ করে করোনার পর থেকে অনলাইনে পড়াশোনার প্রতি অনেকটাই অগ্রগতি বেড়েছে। আপনি পড়াশোনার যে বিষয়ে সবচেয়ে বেশি পারদর্শী সেই বিষয়ে অনলাইনে পাঠদান করতে পারবেন খুব সহজেই।

অনলাইনে শিক্ষাদান করতে বিভিন্ন ওয়েবসাইট ও youtube এ নিজস্ব চ্যানেলের মাধ্যমে ভিডিও প্রকাশ করতে পারেন। বাংলাদেশে অনলাইনে প্ল্যাটফর্মে পড়ানোর জন্য আপনাকে টাকা প্রদান করা হবে। এরকম কিছু ওয়েবসাইট রয়েছে যেগুলোতে শিক্ষাদানের মাধ্যমে খুব সহজেই অল্প দিনে অনেক টাকা ইনকাম করা যায়। রবি ক্লাস টেন মিনিট স্কুল সহ আরো বিভিন্ন কয়েকটি টিউশনি ওয়েবসাইটের নাম দেওয়া হলো এই ওয়েবসাইট গুলোতে টিচারের কাজ করে আপনি ইনকাম করতে পারবেন।

  1. 10miniuteschool.com
  2. tutor.com
  3. vedantu.com
  4. tutorme.com

ফ্রিল্যান্সিং করে অনলাইন ইনকাম

বর্তমান সময়ের প্লানচিং হলো একটি উন্মক্ত ও মুক্ত পেশা। স্টুডেন্ট অনলাইন ইনকাম করার জন্য এই পেশাটি অনেক গুরুত্বপূর্ণ। পড়াশোনার পাশাপাশি এই পেশাটি খুব সহজেই চালিয়ে যেতে পারবেন। তবে, ফ্রিল্যান্সিং করে টাকা ইনকাম করতে হলে আপনাকে অবশ্যই যেকোনো একটি বিষয়ে দক্ষ হতে হবে। ছাত্র-ছাত্রীরা অবসর টাইমে ফ্রিল্যান্সিং করার মাধ্যমে প্রচুর টাকা আয় আয় করে। আপনি চাইলে এই ফ্রিল্যান্সিং পেশাটিকে বেছে নিতে পারেন।

আপনি যে বিষয়ে দক্ষ সেই বিষয়ে মার্কেটপ্লেসে ফ্রিল্যান্সিং করার মাধ্যমে ভালো একটি ইনকাম জেনারেট করতে পারবেন। বর্তমান সময়ে ফ্রিল্যান্সিং একটি মুক্ত পেশা হলেও এই পেশার সাথে অনেকেই জড়িত। কাজ করতে হলে যে কোন ক্যাটাগরিতে কাজ করতে হবে। নিচের দেওয়া লিস্ট থেকে আপনি যেকোনো ধরনের কাজ করতে পারেন তবে এর বাইরেও কিছু কাজ রয়েছে যেগুলো করার মাধ্যমে আপনি ফ্রিল্যান্সিং করতে পারবেন।

  1. আর্টিকেল রাইটিং
  2. ডিজিটাল মার্কেটিং
  3. ওয়েব ডিজাইন
  4. গ্রাফিক্স ডিজাইন
  5. কার্ড ডিজাইন
  6. ভিডিওগ্রাফি
  7. এডিটিং
  8. এস সিও সার্ভিস
  9. ডাটা এন্ট্রি
  10. সাইড অডিট

এখানে দেওয়া লিস্ট থেকে আপনি যে কোন একটি বিষয়ে দক্ষ হলে সেই বিষয় নিয়ে ফ্রিল্যান্সিং শুরু করে দিতে পারেন। এর জন্য বিভিন্ন মার্কেট রয়েছে যেমন fiverr, upwork এই সকল ওয়েবসাইট গুলোতে আপনি খুব সহজেই কাজ করে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে অনলাইন ইনকাম

বর্তমান সময়ে এফিলিয়েট মার্কেটিং করে অনেকেই বিশাল অংকের টাকা কামাচ্ছে। আপনিও স্টুডেন্ট অবস্থায় এফিলিয়েট মার্কেটিং করে প্রচুর টাকা ইনকাম করতে পারবেন। এর জন্য আপনাকে কিছু সময় ব্যয় করতে হবে এবং কিছু শর্ত মেনে চলতে হবে। নিজের কোন পণ্য থাকলেও অন্যের পণ্য বিক্রি করার মাধ্যমে আপনাকে যে কমিশন দেওয়া হবে সেই কমিশনকে এফিলিয়েট মার্কেটিং বলে।

এফিলিট মার্কেটিং করতে আপনাকে এমন ওয়েবসাইট খুঁজে বের করতে হবে যে ওয়েবসাইটে রেফার করার মাধ্যমে টাকা ইনকাম করা যায়। অর্থাৎ আপনি তাদের পণ্য আপনার শেয়ার করা লিঙ্কে ক্লিক করে যে ওই প্রোডাক্টটি কিনে নিবে সেখান থেকে আপনাকে কিছু পরিমাণ টাকা প্রদান করা হবে। অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করার জন্য amazon, ebay, daraz সহ আরো বিভিন্ন ওয়েবসাইট বেছে নিতে পারেন।

ওয়েবসাইটের বিভিন্ন প্রোডাক্ট লিংক শেয়ার করার মাধ্যমে ওই ওয়েবসাইট থেকে আপনার সাজেস্ট করা পণ্যটি যে কিনবে তার থেকে কিছু কমিশন আপনার একাউন্টে জমা হবে। প্রতি মাস শেষে আপনার একাউন্টে নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা জমা হবে এবং সেই টাকা উত্তোলনের জন্য আবেদন করতে পারবেন। তবে এখানে প্রতিটি ওয়েবসাইটে লিমিট দেওয়া আছে যে কত টাকা হলে আপনি টাকা উঠানোর আবেদন করতে পারবেন।

ফটোগ্রাফি বিক্রি করে স্টুডেন্ট অনলাইন ইনকাম

ফটোগ্রাফি পছন্দ করেনা এরকম ছেলেমেয়ে এখন খুঁজে পাওয়া যাবে না। অনেকেই শখের বসে ভালো মোবাইল ও ডিএসএলআর ক্যামেরা দিয়ে ছবি তুলে থাকে। কেমন হবে যদি এই ছবিগুলো বিক্রি করে টাকা ইনকাম করা যায়। এখানে আপনাদের সাথে কিছু ওয়েবসাইট শেয়ার করব যে ওয়েবসাইটে আপনার শখের ফটোগ্রাফি বিক্রি করে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

সব ছবি থেকেই টাকা ইনকাম হয় না তাই এমন কিছু ছবি বাছাই করতে হবে যে ছবিগুলো বর্তমান সময়ে ট্রেন্ডিং ও ভাইরাল। এক্ষেত্রে আপনি বিভিন্ন ধরনের ন্যাচারাল ছবি ও ভেক্টর আর্ট করা ছবি আপলোড করতে পারেন। আপনি যদি ফটোশপ ব্যবহার করে ভালো টাইফোগ্রাফি ও আইকন জেনারেট করতে পারেন তাহলে আপনার জন্য ছবি বিক্রির ব্যবসাটি সেরা হবে। বিভিন্ন ধরনের স্টক ওয়েবসাইট রয়েছে যেখানে আপনার তোলা ছবি বিক্রি করার সুযোগ দিয়ে থাকে।

বর্তমান সময়ে সবচেয়ে ছবি বিক্রির জনপ্রিয় ওয়েবসাইট হল Shutterstock.com এই ওয়েবসাইটটিতে আপনার তৈরি করা ছবি ও আইকন গুলো সহজেই বিক্রি করতে পারবেন। আপনাকে সর্বপ্রথম এই ওয়েবসাইটে কোনটিভেটর একাউন্ট খুলতে হবে। আপনার সেরা ছবিগুলো আপলোড করতে হবে সেখানে প্রতি ডাউনলোডের জন্য আপনাকে টাকা প্রদান করা হবে।

ছবি বিক্রির আরো কিছু সেরা ওয়েবসাইট হল:

  1. adoveStock.com
  2. bigstockphoto.com
  3. pixabay.com
  4. istockphoto.com

ভিডিও দেখে অনলাইন ইনকাম

বর্তমান সময়ে আমরা সবাই ভিডিও দেখতে পছন্দ করি কেমন হয় যদি ভিডিও দেখে টাকা ইনকাম করা যায়? অবশ্যই অনেক ভালো হবে। ভিডিও দেখে টাকা ইনকাম এই উপায় অনেক টাই সহজ কারণ এর জন্য আপনাকে বেশি কিছু করতে হবে না শুধু ওয়েবসাইট ও ভিডিও দেখে ইনকাম করার অ্যাপস ইন্সটল করে সেখানে অ্যাকাউন্ট খুলে ভিডিও দেখলেই হবে।

বিভিন্ন ওয়েবসাইট ও অ্যাপস এর মাধ্যমে টাকা ইনকাম করতে হলে আপনাকে অবশ্যই জানতে হবে এই অ্যাপস ও ওয়েবসাইটটি ভিডিও দেখার মাধ্যমে যে টাকাটা পেমেন্ট করবে সেটা সত্যি করবে কিনা। এখন অনেক ওয়েবসাইট রয়েছে যেগুলো ইনকাম হলেও পেমেন্ট করে না। সেই সব ওয়েবসাইটকে এড়িয়ে চলতে হবে। যে অ্যাপস ও এর ওয়েবসাইটের মাধ্যমে টাকা ইনকাম করবেন সেই ওয়েবসাইট লিখে গুগলে সার্চ করবেন লেজিট কিনা পরবর্তীতে সেই জায়গায় ভিডিও দেখা বা কাজ করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবেন।

Leave a Reply